কোটালীপাড়ায় বৃদ্ধাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৮
গোপালগঞ্জে ইয়াবাসহ ইউপি মেম্বার গ্রেপ্তার
সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৮

পুলিশের উপর মানুষের আস্থা ফিরেছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী-rtvonline

স্টাফ রিপোর্টার: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা সবচেয়ে বেশি কষ্ট করেন। তাই পুলিশ বাহিনীকে শক্তিশালী ও আধুনিকায়নের কাজ করছে সরকার। পুলিশের উপর মানুষের আস্থা ফিরেছে।

রবিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সকালে গণভবনে রংপুর ও গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ইউনিটের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

আটটি থানা নিয়ে গাজীপুর ও ছয়টি থানা নিয়ে গঠিত হয়েছে রংপুর মেট্রেপলিটন পুলিশ।

শেখ হাসিনা বলেন, গাজীপুর মেট্রোপলিটন ইউনিট শিল্প অঞ্চল ও এলাকার মানুষের উন্নয়নে কাজ করবে।
উদ্বোধনের ফলে আজ থেকে রংপুর ও গাজীপুর মেট্রোপলিটনির কার্যক্রম শুরু হলো।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশকে উন্নত করে দেশের শান্তি ও নিরাপত্তা উন্নতি করতে হবে। জঙ্গীবাদ দমনে প্রধানমন্ত্রী আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রশাংসা করেন।

তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গ অবহেলিত ছিল। আমরা এ অঞ্চলের উন্নয়ন কাজ করছি। রংপুর যেহেতু বিভাগ হয়েছে সেহেতু্ এ এলাকার মানুষকে বিভাগীর সুবিধা যেন পায় তার জন্য মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠন করা হয়েছে।

বিএনপি জামায়াতের আন্দোলনের সময় ২৭ জন পুলিশ সদস্য প্রাণ দিয়েছেন উল্লেখ করে তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন শেখ হাসিনা। তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় পুলিশ বাহিনীর ভূমিকার কথাও স্মরণ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘দেশকে সামনে নিয়ে যেতে চাই। বাংলাদেশ কারও কাছে হাত পেতে চলবে না, নিজের পায়ে দাঁড়াবে, মর্যাদা নিয়ে এগিয়ে যাবে।’

২০১০ সালে দেশের সপ্তম বিভাগ প্রতিষ্ঠার পর রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠনের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। চালু হওয়া এ মেট্রোপলিটন পুলিশের আওতায় রয়েছে ৬টি থানা। যা হলো- কোতয়ালি, তাজহাট, মাহিগঞ্জ, হারাগাছ, পরশুরাম ও হাজিরহাট থানা। ২৪০ বর্গকিলোমিটার আয়তনের নতুন এ মেট্রোতে ছয়টি থানা ছাড়াও দু’টি পুলিশ ফাঁড়ি (ধাপ ও নবাবগঞ্জ) রয়েছে। ১ হাজার ১৮৫ জন জনবল ও ১৩০টি যানবাহন নিয়ে নগরবাসীকে সেবা দিতে প্রস্তত রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ। ইতোমধ্যেই পুলিশ কমিশনারসহ ৯০ ভাগ জনবল নিজ নিজ পদে যোগ দিয়েছেন।

২০১৩ সালের ১৬ জানুয়ারি গাজীপুর পৌরসভাকে ১১তম সিটি করপোরেশন হিসেবে গেজেট প্রকাশ করে সরকার। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মন্ত্রিসভার বৈঠকে এই সিটি করপোরেশনে মহানগর পুলিশ গঠনে আইনের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়। এছাড়া গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের আওতায় থাকবে আটটি থানা। জিএমপির নতুন থানা ও এর অধিভুক্ত এলাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এর আওতাধীন আটটি নতুন থানা হলো সদর (বর্তমান জয়দেবপুর থানা), বাসন, কোনাবাড়ি, কাশিমপুর, গাছা, পূবাইল, টঙ্গী পূর্ব ও টঙ্গী পশ্চিম থানা।

গণভবন প্রান্তে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী, র‌্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, স্বাগত বক্তব্য রাখেন জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন। এরপর রংপুর পুলিশ লাইন ও গাজীপুর পুলিশ লাইন মাঠ থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে গণভবন প্রান্তে সংযুক্ত হন স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা।

সিটিনিউজ সেভেন ডটকম /এম.এস

Please follow and like us:
20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: