বিক্রির তিন দিন পর মায়ের বুকে ঠাঁই হল নবজাতকের
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮
গোপালগঞ্জ টেলিভিশন জার্নালিস্ট এ্যাসোসিয়েশন গঠিত
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮

পটুয়াখালীর বদরপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ; মিথ্যা মামলা ও হয়রানির স্বীকার

এম জাফরান হারুন, পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধি: পটুয়াখালী বদরপুর ইউনিয়নে আপন ভাই ভাই জমি জমা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধের জের ধরে একে অপরের মিথ্যা মামলায় হয়রানির স্বীকার হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সুত্রে জানায়, গাবুয়া ৩ নং ওয়ার্ডভূক্ত মো. শাহজাহান খাঁন, পিতা: মো. শামসুদ্দিন খাঁন। ৩০/৩১ বছর আগে ১৩ শতাংশ রেকর্ডি জমির ভিতর ডোবা থাকায় তা ভরিয়ে বসত ভিটা তৈরী করে থাকার ঘর নির্মাণ করে সপরিবারে বসবাস করিয়া আসছে। হঠাৎ গত ১০ বছর আগে তাহার আপন দুই ভাই মো. সুলতান খাঁন ও মো. সেকান্দার খাঁন, উভয় পিতা. মো. শামসুদ্দিন খাঁন। মো. শাহজাহান খানের বাড়ির ভিতরে জমি পাবে বলে দাবি করে। এনিয়ে উভয়ের মধ্যে দ্বিধাদন্দের সৃস্টি হয়। এক পর্যায়ে দুই ভাই মিলে শাহজাহান খাঁন ও তার পরিবারের সকলকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দেয় এবং পেশী শক্তি প্রয়োগ করে নানাভাবে শারীরিক নির্যাতন করে। শাহজাহান খাঁন প্রতিবাদ জানতে গেলে তাকে সুলতান খানঁ ও সেকান্দার খানঁ মিলে মারধর করে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। আহত অবস্থায় তার পরিবারের লোকেরা উদ্ধার করে হাসতালে নিয়ে যান। ২ সপ্তাহ চিকিৎসাধীন থাকার পরে সুস্থ হয়ে বাড়িতে আসে। এনিয়ে উভয় পক্ষে মামলা মোকদ্দমা হয়। এর মধ্যে গ্রাম্য শালিসী হতে আইন বিভাগের মাধ্যমে বিচারের ব্যবস্থা করা হয়। আজ পর্যন্ত তারা সকল শালিসী গনকে অমান্য করে আসছে বলে জানা গেছে।

গত পৌষ মাসে ধান কাটার পর পটুয়াখালী সদর থানার এস,আই মিজানুর রহমানের মাধ্যমে শালিশী মানিয়ে দেয়া হয়। তারা শালী অমান্য করে গ্রামের ৭ জন শালিস গনের বিরুদ্ধে মামলা করে। যাহার বাদী, সেকান্দার খাঁন, আসামী শাহজাহান খাঁন মোকাম-সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট, ১ম আদালত পটুয়াখালী। সি-আর- ১০৩৯/২০১৭ ইং ধারাঃ-৪০৬/৪২০ এর মধ্যে ৩ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য আঃ বারেক ডাক্তার ও ছিলেন। কোন কারণে পরে মামলাটি তুলে নেয়া হয়েছে।

এদিকে মো. শাহজাহান খাঁন জানান, তার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা ও হয়রানিতে কয়েক লক্ষ টাকা খরচে অভাব অসহায়ত্বে নিরাপত্তাহীন জীবন কাটাচ্ছেন এবং বাড়ির গাছ পালা কেটে পেশী শক্তি প্রয়োগ করে নিয়ে যাচ্ছেন বিবাধীরা। তার সত্যতাও পাওয়া গেছে স্থানীয় পর্যায়ে। এনিয়ে বিবাদী মোকাম পটুয়াখালী বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করে যাহা এম,পি. মামলা নং-১০১০/২০১৭ ধারাঃ ১০৭/১১৪/১১৭ ( সি ) ফৌঃ কাঃ বিঃ বিবাদী দরখাস্তকারী ১| শাহজাহান, ২| মোঃ বশির, ৩| রহিমা, ৪| হুমায়ুন, ৫| ফাতমা বেগম, ৬| নুপুর দের পক্ষে লিখিত জবাবের হেতুবাদ। বিবাদী সম্পূর্ণ নির্দোষ অপর পক্ষ সেকান্দার এর মামলাটি মিথ্যা ভ্রান্ত উদ্দেশ্য প্রনোদিত তথা হেরেজ হয়রানি এম.আর-৮০/২০১৭ মোকদ্দমাটি নিজেকে আড়াল করার অপকৌশল হিসাবে মিথ্যা বয়ানে অত্র মামলাটি আদালতে আনায়ন করেছে প্রমানিত। মামলা মোকদ্দমা শালিসীতে তাহার সমস্যার কোন সমাধান হয়নি তাই তিনি গনমাধ্যম ও মানবাধিকারের মাধ্যমে সুবিচারের আইনের সহযোগীতা চেয়ে একটি আবেদন দরখাস্ত করেন। গত ২২/০৯/১৮ ইং nps মানবাধিকার কো-ওর্ডিনেটর মো. নেছার উদ্দিন দরখাস্ত কারী মো. শাহজাহান খাঁনের বাড়িতে যান। স্থানীয় প্রতিবেশীদের উপস্থিতিতে ঘটনার সত্যতা জেনে সাক্ষর নেন এবং জমির কাগজ রেকর্ড, পরচা, হাল দাখিলা দেখায়। তাহার নিজের নামে যাহার খতিয়ান নং-৬২২, জে,এল,নং-১৭, মৌকরন ভুমি অফিস, গাবুয়া পটুয়াখালী জমির পরিমান ০.৬৩৮৩। এবং বসত বাড়িটি মো. শাহজাহান খানের সকল সাক্ষীগনের জবাবে এর সত্যতা পাওয়া গেছে। পাশাপাশি প্রশাসনের নিরপেক্ষ সুদৃষ্টি কামনা করে।

সিটিনিউজ সেভেন ডটকম /এম.এস

Please follow and like us:
20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: