তালায় ওড়না পেঁচিয়ে যুবকের আত্মহত্যা
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮
সড়ক দূর্ঘটনায় রংপুর জেলা যুবলীগ সভাপতি নিহত
সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮

তালায় গরম পানিতে ঝলসে দেওয়া প্রতিবন্ধী টুম্পার বাড়িতে ইউএনও

আওলাদ হুসাইন, সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: তালা উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের রথখোলা বাজারের চায়ের দোকানি বখাটে পূজন খাঁ কর্তৃক স্থানীয় টুম্পা (১৮) নামে এক মানষিক প্রতিবন্ধীকে নিজ দোকানের চায়ের কেটলির গরম পানিতে ঝলসে দেয়ার ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাজিয়া আফরীন ও থানার অফিসার ইনচার্জ মেহেদী রাসেল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

গতকাল ২৬ সেপ্টেম্বর সকালে সেখানে গিয়ে মারাত্বক আক্রান্ত টুম্পার শারিরীক অবস্থার খোঁজ-খবর নেন। এসময় ইউএনও টুম্পার পরিবারকে তার চিকিৎসার্থে ৪ হাজার টাকার অনুদান প্রদান ও অসুস্থ্য টুম্পাকে তালা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তির পরামর্শ দেন।

ঘটনাস্থল থেকে ফিরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাংবাদিকদের সাথে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করতে গিয়ে বলেন, টুম্পার শারিরীক অবস্থা খুব একটা ভাল না। তবে ঘটনার নায়ক পূজন খাঁ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানায়, কানাইদিয়া গ্রামের ওয়াজেদ গাজীর মেয়ে মানষিক প্রতিবন্ধী টুম্পা গত মঙ্গলবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ঐ দোকানে গেলে বখাটে পূজন তার দোকানের চায়ের কেটলির গরম পানি ঢেলে দেয় টুম্পার শরীরে। এতে মারাত্মক যন্ত্রণায় কাতর টুম্পা শরীরের সেলোয়ার-কামিজ খুলে হাতে নিয়ে বিবস্ত্র অবস্থায় চিৎকার দিয়ে কাঁদতে কাঁদতে দৌড়ে বাড়িতে যায়।

এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানায়, গরম পানিতে টুম্পার বুক ও পিট মারাত্মকভাবে পুড়ে গেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা নেয়ার পরও সে বিবস্ত্র অবস্থায় বাড়ির বারান্দায় পড়ে যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছে।

টুম্পার মা জানায়, সাবালিকা পাগলী মেয়েকে নিয়ে তারা এখন মহাবিপদে রয়েছেন। দারিদ্রতার কারণে না পারছেন মেয়ের সুচিকিৎসা করাতে আবার না পারছেন চোখের সামনে সাবালিকা মেয়ের যন্ত্রণা সহ্য করতে। এমন পরিস্থিতিতে উপজেলা প্রশাসনের ঘটনাস্থল পরিদর্শন ও সহযোগিতা প্রদান পরিবারটিকে খানিকটা হলেও আশার আলো দেখাচ্ছে।

স্থানীয়রা আরো জানায়, এর আগেও পূজন টুম্পাকে দু’দফা অনুরুপ পুড়িয়ে দিয়েছিল। তবে সেবারকার ঘটনা এতটা ভয়াবহ ছিলনা।

এদিকে ঘটনার পর থেকে সংশ্লিষ্ট পূজন দোকান-পাঠ বন্ধ করে এলাকা ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

স্থানীয় একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, দারিদ্রতার সুযোগে এলাকার একটি প্রভাবশালী মহল বিষয়টি স্থানীয়ভাবে মিমাংশা করতে টুম্পার পরিবারের সাথে যোগাযোগ করছে। এমনকি তাদেরকে বিষয়টি নিয়ে বাড়াবাড়ি না করতে নানাভাবে প্রলুব্ধ করা হচ্ছে। সর্বশেষ স্থানীয় প্রশাসনের তাৎক্ষণিক ভুমিকায় প্রশাসনকে সাধুবাদ জানিয়েছেন এলাকাবাসী ও ঘটনার শিকার টুম্পার পরিবার।

সিটিনিউজ সেভেন ডটকম /এম.এস

Please follow and like us:
20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: