পদ্মা-যমুনার ২২ স্থান ভাঙন ঝুঁকিতে
আগস্ট ১৬, ২০১৮
আশাশুনিতে কাকার বসত বাড়ি ভাংচুর করেছে ভাইপো
আগস্ট ১৬, ২০১৮

টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধীতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

নজরুল ইসলাম, গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩-তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। বুধবার সকাল ১০ টা ৬ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধী সৌধের বেদীতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করে শ্রদ্ধা জানান। এ সময় সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল প্রধানমন্ত্রীকে অনার গার্ড প্রদান করে। পরে প্রধানমন্ত্রী তার ছোট বোন শেখ রেহানা ও পরিবারের সদস্যদের সাথে নিয়ে ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাতে অংশ নেন।

এসময় কেন্দ্রীয় আওয়ূামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুর কাদের, বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষি মন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, এলজিইডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খোন্দকার মোশাররফ হোসেন, নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাহাজান খান এমপি. কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি, লে. কর্ণেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য কাজী আকরাম উদ্দীন আহমেদ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম এমপি, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, প্রধানমন্ত্রীর চাচাতো ভাই শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মোখলেসুর রহমান সরকার, ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আসলাম খান, গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হক, সাধারন সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কাজী লিয়াকত আলী লেকু, সাধারন সম্পাদক রফিকুল ইসলাম মিটু প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ওবায়দুর কাদেরের নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। এরপর কেন্দ্রীয় যুবলীগের পক্ষে জনশক্তি ও কর্ম-সংস্থান সম্পাদক বাবুল আকতার বাবলা, শেখ ফজলে ফাহিম, শেখ ফজলে নাঈম এবং আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের পক্ষে বঙ্গবন্ধুর সমাধীতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পরে বঙ্গবন্ধু সমাদী সৌধ কমপ্লেক্স মসজিদ প্রাঙ্গনে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান মন্ত্রী, মন্ত্রী পরিষদের সদস্য বৃন্দ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ অংশ নেন।

প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়াসহ গোপালগঞ্জে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে। পুলিশ, ডিবি পুলিশ, র‌্যাবের পাশাপাশি বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা মাঠে কাজ করছেন।

এদিকে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩-তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জের সীমানা মুকসুদপুর থেকে গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার চরগোবরা এবং ঘোনাপাড়া থেকে টুঙ্গিপাড়া বঙ্গবন্ধু সমাধীস্থল পর্যন্ত অন্ততঃ পাঁচ শতাধিক কালো-কাপড়ে মোড়া তোরণ নির্মাণ করা হয়েছে। ৭৫-এর ১৫ আগষ্ট নিহত বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের নামে এসব তোরণ নির্মাণ করেছেন জেলা-উপজেলা আওয়ামী লীগ, জেলা যুব লীগ, বিভিন্ন জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি পর্যাগয়ে। এছাড়া গোপালগঞ্জ থেকে টুঙ্গিপাড়া পর্যেন্ত সড়কের দুই পাশে বঙ্গবন্ধু ছবি সংবলিত প্লাকার্ড লাগানো হয়েছে। টুঙ্গিপাড়ায় বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাড়িতে কালো-কাপড়ের পতাকা টাঙানো হয়েছে। টুঙ্গিপাড়াসহ পুরো জেলা শোকাবহ আভা বিরাজ করছে।

সিটিনিউজ সেভেন ডটকম /এম.এস

Please follow and like us:
20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: