গাজীপুর নিয়ে বিএনপি মিথ্যা তথ্য দিচ্ছে: কাদের
জুন ২৭, ২০১৮
অন্যদের তুলনায় ‘মশা’ আপনাকে বেশি কামড়ায় যে কারণে
জুন ২৭, ২০১৮

গ্যাস সংকটে লালবাগে জ্বলে না চুলা

লালবাগ প্রতিনিধি: পুরান ঢাকায় লালবাগ এলাকাটি বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল গ্যাসের সমস্যা। এখানে ভোর ৫টায় গ্যাস চলে যায় আর আসে রাত ১০টার পর। দিনের বেলায় কোনো গ্যাস থাকে না। এখানে দিনের রান্না করতে হয় রাতে। প্রায় ১০ বছর ধরে গ্যাস সংকটের কারণে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছে এ এলাকার বাসিন্দারা।

লালবাগ এলাকায় প্রায় প্রায় ৭ লাখ মানুষের বসবাস। লালবাগের বাসিন্দারা তিতাস গ্যাসে আবেদন করেও কোনো সুফল পাচ্ছে না। গ্যাস সংকটের কারণে অন্য এলাকার ভাড়াটিয়ারা এ এলাকায় আসতে চায় না। আর যারাও আছে তারা গ্যাসের দুর্ভোগ নিয়ে কোনোরকম জীবনযাপন করছে।

লালবাগের শহীদনগর, নবাবগঞ্জ লেন, হোসেন উদ্দিন খান ১ম লেন, হোসেন উদ্দিন খান ২য় লেন, রসুলবাগ, শেখ সাহেব বাজার, চৌধুরী বাজার, পলাশী, আজিমপুর, ঢাকেশ্বরী, হাজারীবাগ, আমলীগোলাসহ অনেক এলাকায় গ্যাস সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। তিতাস গ্যাস কোম্পানির অভিযোগ কেন্দ্রে প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকার থেকে গ্যাস সংকটের অভিযোগ আসছে।

এলাকার ভুক্তভোগীরা বলেন, তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের কাছে বারবার লিখিতভাবে গ্যাসের সমস্যা তুলে ধরেছি। গণস্বাক্ষর সংবলিত আবেদনও করেছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি। অবশেষে উপায় না দেখে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কাছেও লিখিত আবেদন করেছি। তাতেও কোনো লাভ হয়নি। এখন আমরা যাব কোথায়? কার কাছে আমরা এ অভিযোগের কথা জানাব।

লালবাগ এলাকার ভাড়াটিয়া মন্নান বলেন, আমরা সীমিত আয়ের মানুষ। রান্নাবান্না করার জন্য প্রতিদিন আমাকে ১ কেজি কেরোসিন তেল কিনতে হয়। ১ কেজি কেরোসিন তেলের দাম ৭০ টাকা। মাসে আমাকে ২১০০ টাকার কেরোসিন তেল কিনতে হয় কেবলমাত্র রান্না করার জন্য। আমাদের মতো মেহনতি মানুষদের এ বাড়তি ২১০০ টাকা জোগাড় করতে অনেক কষ্ট করতে হয়।

লালবাগের বাসিন্দা হাজী মোহাম্মদ আলী বলেন, গ্যাস সংকটের কারণে বাড়িভাড়া দিতে পারছি না। আর যারা আছেন একমাত্র গ্যাস সংকটের কারণে তাদের কাছ থেকে বাড়ি ভাড়া কম নিচ্ছি। যদি এইভাবে চলতে থাকে তাহলে লালবাগে কোনো বাড়িওয়ালা বাড়ি বানাবে না।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ২৩নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. হুমায়ুন কবির বলেন, আমার দৃষ্টিতে মূলত দুটি কারণে গ্যাসের সংকট দেখা দিয়েছে। এক. পুরনো গ্যাস সংযোগ লাইনের ত্রুটি। আরেক হল অতিরিক্ত জনসংখ্যার চাপ।

ডিএসসিসি ২৫নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, বাসাবাড়িতে অনেকেই হোটেল, বেকারি, চাইনিজের খাবার রান্নাবান্না করে থাকে। এতে অন্যের বাড়িতে গ্যাসের চাপ কমে যায়।

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির জরুরি গ্যাস নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র দক্ষিণের দুই রেডিও অপারেটর মো. আলমগীর ও মোশারফ হোসেন বলেন, পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্যাস সংকটের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। চাহিদার তুলনায় গ্যাসের চাহিদা বেশি হওয়ায় এ গ্যাস সংকট দেখা দিয়েছে। লাইনে প্রেসার কম থাকায় গ্যাস সরবরাহে ঘাটতি হচ্ছে।

সিটিনিউজ সেভেন ডটকম /এম.এস

Please follow and like us:
20

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: